সিরিয়ায় রাসায়নিক অস্ত্রের ব্যবহার অনুসন্ধানের আহ্বান

SyriaCrisisনূপুর চৌধুরী: অনতিবিলম্বে সিরিয়ার সহিংসতায় রাসায়নিক অস্ত্র ব্যবহারের অভিযোগ তদন্তের আহ্বান জানিয়েছেন জাতিসংঘ মহাসচিব বান কি মুন। প্রয়োজনে সংস্থার নিরস্ত্রীকরণ প্রধান অ্যাঙ্গিলা কেইনকে দামেস্কে পাঠানোর প্রস্তাবও করেছেন তিনি। সিরিয়ায় রাসায়নিক অস্ত্রের ব্যবহারের অভিযোগ ওঠার পর থেকে প্রতিবাদের ঝড় ওঠেছে গোটা বিশ্বে।

রাসায়নিক অস্ত্রের বিষয়ে দ্রুত অনুসন্ধান শুরু করতে দামেস্ককে চাপ দিতে এবার জাতিসংঘ নিরস্ত্রীকরণ প্রধান কেইনকে সিরিয়ায় পাঠানোর প্রস্তাব করেছেন জাতিসংঘ মহাসচিব বান কি মুন।

বান কি মুন বলেন, রাসায়নিক অস্ত্রের ব্যবহার করলে তার পরিণতি ভয়াবহ হবে। কাউকে ছাড় দেয়া হবে না এভাবে বেসামরিক মানুষ হত্যা করলে।

সম্প্রতি রাজধানীর পার্শ্ববর্তী এলাকায় রাসায়নিক অস্ত্র ব্যবহার করে, তেরশো বেশি মানুষকে হত্যার অভিযোগ আনে সিরিয়ার সরকারবিরোধীরা। গৃহযুদ্ধের কারণে মানবিক বিপর্যয় নেমে আসা দেশটি কোনো পক্ষ রাসায়নিক অস্ত্রের ব্যবহার করছে কি না, তা খতিয়ে দেখতে আন্তর্জাতিক সম্প্রদায়ের কয়েকজন সদস্য দামেস্কে উপস্থিত হওয়ার চার দিনের মাথায় এ ধরনের অভিযোগ ওঠে।

সিরিয়ান ন্যাশনালের মুখপাত্র খালিদ সালেহ বলেন, মৃতের সংখ্যা বাড়ছেই। এ পর্যন্ত আমরা এক হাজার তিনশো ষাট জনের মৃতের খবর নিশ্চিত করেছি।

তবে বিষাক্ত গ্যাসে হতাহতের ওই অভিযোগকে ‘অযৌক্তিক এবং রঙচড়ানো’ বলে দাবি করেছে সিরিয়া সরকার।

সিরিয়ার পার্লামেন্ট সদস্য ওয়ালিদ আল জোয়াবি বলেন, প্রতি মুহুর্তেই সিরিয়ার বিভিন্ন ঘটনাবলী পর্যবেক্ষণ করছে আন্তর্জাতিক পর্যবেক্ষক দল।আর সিরিয়ায় যে কয়েক জন মানুষ এ পর্যন্ত মারা গেছে তা সন্ত্রাসী হামলায় নিহত হয়েছে।

হতাহতের খবর প্রকাশের পর ফ্রান্স, ব্রিটেন ঘটনার সত্যতা সাপেক্ষে সিরিয়ার বিরুদ্ধে শক্ত অবস্থান নেয়ার পক্ষে মত দিয়েছে।সহিংসতা থামাতে, দ্রুত সামরিক ব্যবস্থা নেয়ার আহ্বানও জানিয়েছে তারা।প্রেসিডেন্ট আসাদের মিত্রদেশ রাশিয়াও ‘সতর্কতামূলক’ মত দিয়েছে। বিষয়টি নিয়ে বরাবরের মতো গভীর উদ্বেগ প্রকাশ করেছে যুক্তরাষ্ট্র।সিরিয়ায় নিরাপরাদ মানুষ হত্যার প্রতিবাদে বিক্ষোভ মিছিল করেছে জর্ডানের নাগরিকরাও।

লেখার বিষয় : বিশ্ব